গর্ভাবস্থায় কীভাবে আপনার পায়ের যত্ন নেবেন

You are currently viewing গর্ভাবস্থায় কীভাবে আপনার পায়ের যত্ন নেবেন
Image by mvorocha from Pixabay

আপনি হয়তো বুঝতে পারবেন না, কিন্তু গর্ভাবস্থায় আপনার পা সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করে। প্রথমত, তাদের আপনার শরীরের ওজন মোকাবেলা করতে হবে যা তাদের উপর প্রচণ্ড চাপ সৃষ্টি করে, দ্বিতীয়ত অঙ্গ থেকে হৃদপিণ্ডে রক্ত ​​নিয়ে যাওয়ার সময় আপনার শরীরের সঞ্চালন ধীর হয়ে যায় এবং তাদেরও তা সহ্য করতে হবে। ঠিক আছে, এই সব গর্ভাবস্থার শোথ নয় যা আপনার পা বেলুনের মতো ফুলে যায়। যদিও সমস্ত মনোযোগ বেবি বাম্পের উপর ফোকাস করা হয়, আমরা এর বাইরে তাকাতে ব্যর্থ হই এবং গর্ভাবস্থায় আপনার পাকে প্রয়োজনীয় TLC দিতে পারি।

গর্ভাবস্থা হল সেই সময় যখন আপনি গোড়ালি ফাটা এবং নয় মাস জুড়ে পেশীতে ক্র্যাম্প তৈরি করেন। কিন্তু কিছু ঘরোয়া প্রতিকারই এই সমস্যাগুলো কাটিয়ে ওঠার জন্য যথেষ্ট। এখানে আপনি আপনার পায়ের যত্ন নিতে পারেন:

ফাটা হিল: এটি গর্ভাবস্থায় সাধারণ কারণ গর্ভাবস্থায় আপনার বিপাক বৃদ্ধি পায়, শরীরে আরও তাপ তৈরি করে ত্বকের সমস্যাগুলি ছড়িয়ে পড়ে। আপনি যদি ঠান্ডা এলাকায় থাকেন বা আবহাওয়া শুষ্ক থাকে, তাহলে এর ফলে হিল ফাটা হতে পারে, যা গর্ভাবস্থায় আপনার ত্বকের অন্যান্য সমস্যাকে বাড়িয়ে তুলতে পারে। গোড়ালি ফাটাতে সাহায্য করতে: এক চামচ শুকনো গোলাপের গুঁড়া, পেঁপের গুঁড়া, লিকোরিস, অর্জুন গাছের ছাল দিয়ে একটি ক্রিম তৈরি করুন এবং এগুলোকে দুধের ক্রিম বা উষ্ণ কোকো মাখনের সাথে দুই ফোঁটা ল্যাভেন্ডার তেল যোগ করুন। আপনার পা ধুয়ে নিন এবং ঘুমাতে যাওয়ার আগে আপনার পায়ে এই ক্রিমটি ভালো করে লাগান।

পায়ে ক্র্যাম্প: এটি প্রায়শই মায়ের ক্যালসিয়ামের ঘাটতি বা লবণের ঘাটতির (পটাসিয়াম) লক্ষণ। আপনি যেখানে ব্যথা অনুভব করেন সেখানে একটি দৃঢ় ম্যাসেজ দিন। ক্র্যাম্প এড়াতে রাতে লম্বা স্টকিংস পরুন কারণ এটি পা উষ্ণ রাখে। আপনার পা দিয়ে একটি মলের উপর বসুন, একটি বালতিতে গরম জলে হাঁটু পর্যন্ত ডুবিয়ে রাখুন, বালতিতে দুই চামচ রক সল্ট যোগ করুন। পটাসিয়ামের ঘাটতির কারণে যদি ক্র্যাম্প হয় তাহলে আলু, রসুন, সেলারি, গাজর, পেঁয়াজ যোগ করে আপনার খাদ্যতালিকায় উন্নতি ঘটাতে সাহায্য করবে। ক্র্যাম্প থেকে পুনরুদ্ধার করার জন্য পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন এবং আপনার গর্ভাবস্থায় অনেকক্ষণ বসে থাকা বা দাঁড়িয়ে থাকা এড়িয়ে চলুন।

নারকেল তেল

রাতে নারকেল তেল দিয়ে পায়ে মালিশ করুন।

এটা কিভাবে সাহায্য করে?

আপনি যখন উষ্ণ নারকেল তেল দিয়ে আপনার পা ম্যাসাজ করেন, গরম তেল পায়ে উষ্ণতা প্রদান করে এবং আপনাকে ঠান্ডা পায়ের সাথে মোকাবিলা করতে সহায়তা করে। এছাড়াও, তেল দিয়ে পায়ে মালিশ করলে পায়ে রক্ত সঞ্চালন উন্নত হয়, যা পায়ের তাপমাত্রা আরও বাড়ায় এবং পা গরম রাখে। এছাড়াও, রাতে তেল লাগালে পায়ের আর্দ্রতা বন্ধ হয়ে যায় এবং ত্বক শুষ্ক হওয়া রোধ করে। নিয়মিত তেল দিয়ে আপনার পায়ে মালিশ করলে হিল ফাটা রোধ হয় কারণ এটি মৃত ত্বককে সরিয়ে দেয় এবং এইভাবে আপনার পা নরম ও কোমল রাখে।

তেল দিয়ে একটি নিয়মিত ফুট ম্যাসাজ শুধুমাত্র আপনার পা এবং স্বাস্থ্যকর করে না বরং আপনাকে অন্যান্য স্বাস্থ্য সুবিধাও প্রদান করে। এটি তরল ধরে রাখার কারণে পায়ের ফোলাভাব কমাতে সাহায্য করতে পারে, বিশেষ করে গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে দেখা যায়। এটি সারাদিন ভ্রমণের কারণে সৃষ্ট স্ট্রেস উপশম করার একটি রিফ্লেক্সোলজি কৌশল হিসাবে কাজ করে। এটি পায়ের পেশী শিথিল করে এবং পায়ের ব্যথা কমায়। একটি ভাল ফুট ম্যাসাজ আপনাকে একটি ভাল ঘুম দিতে পারে। তাই এই শীতে ঘুমানোর আগে পা ম্যাসাজ করতে ভুলবেন না যেন!

Leave a Reply