চুলের জন্য আদার উপকারিতা এবং ঘরোয়া প্রতিকার-Ginger Benefits and Home Remedies for Hair

You are currently viewing চুলের জন্য আদার উপকারিতা এবং ঘরোয়া প্রতিকার-Ginger Benefits and Home Remedies for Hair
Image by Maja Cvetojević from Pixabay

চকচকে উজ্জ্বল চুল বজায় রাখার ক্ষেত্রে, আমরা আমাদের চুলের সুরক্ষা এবং মেরামত করতে ব্র্যান্ডেড চুলের পণ্যগুলি ব্যবহার করতে পছন্দ করি। কিন্তু এই পণ্যগুলি খুব বেশি পার্থক্য করে না এবং আমরা তাদের জন্য হাজার হাজার টাকা খরচ করি। সুতরাং, আপনার চুলের নিয়মে প্রাকৃতিকভাবে আদা যুক্ত করাই ভালো, যা আপনার ট্রেসের জন্য একটি জাদুকরী হাতিয়ার। আয়ুর্বেদ অনুসারে, আদা চুলের ফলিকলগুলিকে উদ্দীপিত করে এবং বৃদ্ধিকে উত্সাহিত করে। এই বিস্ময়কর উপাদানটির আরও অনেক লুকানো উপকারিতা রয়েছে। সুতরাং, এর গোপন উপকারিতা এবং কীভাবে আপনি এটি আপনার চুলে প্রয়োগ করতে পারেন তা জানতে পড়ুন।

চুলের জন্য আদার উপকারিতা এবং ঘরোয়া প্রতিকার-Ginger Benefits and Home Remedies for Hair

আদার উপকারিতা

চুলের বৃদ্ধি প্রচার করে

আদার মধ্যে জিঞ্জেরল নামক একটি উপাদান রয়েছে যা রক্তনালীগুলিকে শিথিল করতে এবং রক্ত সঞ্চালন উন্নত করতে পরিচিত। মাথার ত্বকে লাগালে এটি রক্ত সঞ্চালন উন্নত করে চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করতে পারে।

চুল পড়া রোধ করুন
আদার অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ত্বকের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে। এটি, ঘুরে, চুল পড়া কমাতে সাহায্য করে কারণ মাথার ত্বকের সংক্রমণ কখনও কখনও চুল পড়ার পিছনে কারণ হতে পারে।

টেবিল চামচ গ্রেট করা আদা কয়েক ফোঁটা জলের সাথে মিশিয়ে শুরু করুন। এই পেস্টটি আপনার মাথার ত্বকে লাগান এবং এটি প্রায় 45-55 মিনিটের জন্য বসতে দিন। হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন এবং চকচকে, সিল্কি চুলের জন্য

আদা ও পেঁয়াজ

আদার অ্যান্টিসেপটিক বৈশিষ্ট্য আপনার চুলের জন্য জাদুর মতো কাজ করবে। অন্যদিকে, পেঁয়াজের সজ্জা চুলের ফলিকলে রক্ত ​​সঞ্চালনকে উদ্দীপিত করবে এবং প্রদাহ কমায়। সহজভাবে, আধা কাপ পেঁয়াজের রসের সাথে ২ টেবিল চামচ আদার রস মিশিয়ে নিন। একটি তুলোর বল ব্যবহার করে, এই মিশ্রণটি আপনার মাথার ত্বকে লাগান এবং 20-25 মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন।

তাহলে তুমি কিসের জন্য অপেক্ষা করছ? আপনার চুলের নিয়মে এই বিস্ময়কর উপাদানটি অন্তর্ভুক্ত করুন এবং সেই সমস্ত চুলের সমস্যাকে দূরে রাখুন।

চুলের বৃদ্ধির জন্য আদার পেস্ট

উপাদান:

আদা দুই থেকে তিনটি ছোট টুকরা
দুই ফোঁটা নারকেল তেল
ব্যবহার করে:

আদা ধুয়ে পিষে পেস্ট তৈরি করুন।
এবার এই পেস্টটি একটি পাত্রে রাখুন।
তারপর এই পেস্টে নারকেল তেল যোগ করুন।
এবার এই পেস্ট চুলে লাগিয়ে ১৫ মিনিট রেখে দিন।
এরপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।
আপনি সপ্তাহে একবার এই প্রক্রিয়া পুনরাবৃত্তি করতে পারেন।

কতটা লাভজনক:

চুলের জন্য পেস্ট আকারেও আদা ব্যবহার করা যেতে পারে। চুল সুস্থ রাখতে সিলিকন নামক একটি পুষ্টি উপাদান আদার মধ্যে পাওয়া যায়। এই উপাদানটি চুলকে সুস্থ রাখতে কাজ করতে পারে। চুলের সাজসজ্জার জন্য প্রি-ওয়াশ এবং পোস্ট-ওয়াশ হিসাবে নারকেল তেল ব্যবহার করার উপর একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা করা হয়েছে। এই সমীক্ষা অনুসারে, নারকেল তেলই একমাত্র তেল যা চুলের প্রোটিনের ক্ষতি কমাতে পারে।

আদা, শসা, নারকেল তেল এবং তুলসীর তেল দিয়ে তৈরি হেয়ার মাস্ক

উপাদান:

আদা পেস্ট ২ চা চামচ
নারকেল তেল 4 ফোঁটা
তুলসী তেল 4 ফোঁটা
চা চামচ শসার পেস্ট
ব্যবহার করে:

একটি পাত্রে আদার পেস্ট নিন এবং এতে শসার পেস্ট দিন।
এবার এই পেস্টে নারকেল ও তুলসী তেল মিশিয়ে নিন।
তারপর একটি চামচের সাহায্যে উপাদানগুলো ভালো করে মিশিয়ে নিন।
এরপর এই মিশ্রণটি চুলে লাগিয়ে ১০ মিনিট রেখে দিন।
তারপর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
এই পদ্ধতি সপ্তাহে একবার ব্যবহার করা যেতে পারে।
কতটা লাভজনক:

আপনি জানেন আদা চুলের জন্য উপকারী। একই সময়ে, ম্যাগনেসিয়াম অ্যাসকরবিল ফসফেট (ভিটামিন সি-এর একটি দ্রবণীয় রূপ) শসায় পাওয়া যায়, যা চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করতে পারে।
একই সময়ে, তুলসী তেলে ফ্যাটি অ্যাসিড পাওয়া যায়, যা চুলের উন্নতিতে সাহায্য করতে পারে। নারকেল তেল সম্পর্কে কথা বললে, এতে চুলের ক্ষতি থেকে রক্ষা করার সম্পত্তি রয়েছে এবং এটি চুলের পণ্যগুলিতেও ব্যবহৃত হয়।

চুলের বৃদ্ধির জন্য আদা এবং পেঁয়াজ
উপাদান:

2 চা চামচ আদার রস
এক চা চামচ পেঁয়াজের রস
ব্যবহার করে:

একটি পাত্রে আদার রস দিন।
এবার এতে পেঁয়াজের রস দিন।
তারপর হালকা হাতে চুলের গোড়ায় লাগান।
১০ মিনিট রেখে পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।
এই প্রক্রিয়াটি তিন দিনের ব্যবধানে সপ্তাহে দুবার পুনরাবৃত্তি করা যেতে পারে।
এটা কিভাবে লাভজনক?

আদার রস চুলের জন্য উপকারী, অন্যদিকে পেঁয়াজের রসও চুলের জন্য উপকারী প্রমাণিত হতে পারে। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, এটি দেখা গেছে যে পেঁয়াজের রস চুলের পুনঃবৃদ্ধির ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি কার্যকরী হতে পারে এবং অ্যালোপেসিয়া (চুল পড়ার একটি গুরুতর সমস্যা) চিকিত্সার ক্ষেত্রেও কার্যকর হতে পারে।

আদা এবং রসুনের চুলের মাস্ক

উপাদান:

আদার রস এক চা চামচ
রসুনের নির্যাস এক চা চামচ
ব্যবহার করে:

আদার রসে রসুনের নির্যাস যোগ করুন।
এই মিশ্রণটি হালকা হাতে চুলের গোড়া পর্যন্ত লাগান।
10 থেকে 15 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।
এই মাস্ক সপ্তাহে একবার ব্যবহার করা যেতে পারে।
এটা কিভাবে লাভজনক?

আদার ব্যবহার চুলকে খুশকির হাত থেকে রক্ষা করতে কাজ করতে পারে, কারণ আদা ছত্রাক বিরোধী এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। এই কারণে, চুল খুশকি মুক্ত করতে এটি শ্যাম্পুতে ব্যবহার করা হয়। বিশেষজ্ঞদের দ্বারা পরিচালিত একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায়, এটি পাওয়া গেছে যে রসুনের নির্যাস চুলের স্বাস্থ্যের উন্নতির পাশাপাশি চুল পড়া রোধ করে।

আদা এবং রসুনের চুলের মাস্ক
Image by Rob Owen-Wahl from Pixabay

সতর্কতা:
চুলের জন্য আদা ব্যবহার করার সময় নিম্নলিখিত সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন হতে পারে:

আপনার যদি সংবেদনশীল মাথার ত্বক থাকে তবে আদা হেয়ার মাস্ক লাগানোর আগে অবশ্যই একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে ভুলবেন না।
আদার হেয়ার মাস্ক অতিরিক্ত ব্যবহার করবেন না, অন্যথায় এতে উপস্থিত জিঞ্জেরল চুলের বৃদ্ধিকেও বাধা দিতে পারে।
আপনি এই নিবন্ধে পড়ুন কিভাবে পুষ্টি সমৃদ্ধ আদা চুলের বিভিন্ন সমস্যা নিরাময় করতে পারে। তবে এটি যদি একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ এবং ব্যবহারের সময়সীমার সাথে সেবন করা হয় তবে এটি চুলের জন্য উপকারী হতে পারে। একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, এটি ব্যবহার করার সময় আপনার যদি কোনো সমস্যা হয়, তাহলে অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। আমরা আশা করি আপনি এই নিবন্ধটি পছন্দ করেছেন।

Leave a Reply