মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা

মাছ একটি কম চর্বিযুক্ত প্রোটিন যা ওমেগা 3 ফ্যাটি অ্যাসিডের একটি বিশাল উৎস। প্রতিদিন মাছ খাওয়ার বেশ কিছু উপকারিতা রয়েছে। নিয়মিত মাছ থাকা আমাদের হৃদরোগের মতো অনেক রোগ থেকে দূরে রাখতে সাহায্য করে,

ডিমেনশিয়া এবং ক্যান্সার ইত্যাদি। এই প্রোটিন আমাদের দৃষ্টিশক্তি এবং মস্তিষ্কের সুরক্ষার জন্যও খুব সহায়ক।
যেহেতু আমরা সবাই জানি যে খুব বেশি কিছু খাওয়া আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ঠিক নয়। কিন্তু সঠিক পরিমাণে খাওয়া আমাদের শরীরের কোন ক্ষতি করবে না। 

এই প্রবন্ধে, আমরা আমাদের নিয়মিত জীবনে মাছ খাওয়ার ঝুঁকি এবং উপকারিতা দুটোই আলোচনা করব এবং এইভাবে আপনি কোন রকম বিভ্রান্তি ছাড়াই সহজেই আপনার স্বাস্থ্যকর খাদ্য প্রস্তুত করতে পারবেন।

মাছ খাওয়ার উপকারিতা
হৃদরোগের প্রবণতা কমায়
কার্ডিওভাসকুলার রোগে আক্রান্তদের জন্য মাছ একটি আশীর্বাদ। এই বিস্ময়কর প্রোটিন স্ট্রোক এবং হার্ট অ্যাটাকের প্রবণতা কমায়। আসলে, এটি কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে দেয় এবং ধমনী এবং শিরাগুলিকে প্রশস্ত করে যা রক্ত জমাট বাঁধতে সহায়তা করে।

ওমেগা 3 ফ্যাটি অ্যাসিডে ভরা এই খাদ্য প্রদাহ কমাতে অবদান রাখে এবং আমাদের একটি সুস্থ হৃদয় সরবরাহ করে। এছাড়া মাছের তেলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ডি যা আমাদের শরীরের হরমোনের ভারসাম্য বজায় রাখে।

আমাদের দৃষ্টিশক্তি উন্নত করে
এর গবেষণার উপর ভিত্তি করে, মাছ আমাদের দৃষ্টিশক্তি এবং দৃষ্টিশক্তি উন্নত করতে সাহায্য করে। ওমেগা-3 ফ্যাটি অ্যাসিড, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম এবং অন্যান্য অনেক কিছু ধারণকারী মাছ আমাদের মস্তিষ্ক এবং চোখের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলে।

তদুপরি, মাছের মধ্যে উপস্থিত ম্যাগনেসিয়াম আমাদের পুরো শরীর জুড়ে তরলের একটি কার্যকর এবং সঠিক সঞ্চালনের দিকে পরিচালিত করে। ফিশ ফিললেটের একটি টুকরা আশ্চর্যজনকভাবে আমাদের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে এবং ম্যাকুলার ডিজেনারেশনের প্রবণতা কমায়।

ত্বক ও চুলের জন্য ভালো
ত্বক ও চুলের জন্য মাছ খাওয়ার উপকারিতা কম নয়। একটি পুষ্টিকর এবং স্বাস্থ্যকর খাদ্য তারুণ্য এবং উজ্জ্বল ত্বকের দিকে পরিচালিত করে। মাছের মধ্যে বিদ্যমান বেশ কিছু ভিটামিন এবং প্রোটিনের কারণে এটি আমাদের ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা বৃদ্ধি করে এবং আমাদের ত্বককে শক্ত করে।

আপনার যদি ব্রণের তীব্র সমস্যা থাকে তাহলে এই খাবার এড়িয়ে যাবেন না। বিশ্বাস করুন এটি আপনার ব্রণের সমস্যা কমিয়ে আপনার ত্বককে উন্নত করবে।

এছাড়াও, এই প্রোটিনে উপস্থিত ওমেগা-3 ফ্যাটি অ্যাসিড সেবন করে ধীরে ধীরে চুল পড়া রোধ করতে সাহায্য করে। এছাড়াও, এটি আপনার শুষ্ক মাথার ত্বকের উন্নতি করে এবং ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া থেকে রক্ষা করে।

আয়রনের ঘাটতি কমায়
আমাদের শরীর থেকে আয়রনের ঘাটতি দূর করতে ডাক্তার এবং চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা নিয়মিত মাছ খাওয়ার পরামর্শ দেন। সালমন এবং টুনা মাছ সত্যিই আমাদের সারা শরীরে রক্তের নিয়ন্ত্রনের প্রচারের জন্য সুপারিশযোগ্য।

লিভারের রোগের চিকিৎসা করে
বেশ কয়েকটি গবেষণা এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষা থেকে দেখা গেছে যে ওমেগা-3 ফ্যাটি এসিড লিভারে ফ্যাটি এসিড ভাঙতে সাহায্য করে। অতএব, ওমেগা-3 ফ্যাটি অ্যাসিডের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সুবিধা হল এটি লিভারের রোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

কম চর্বি এবং শক্তি বাড়ায়
মাছের মধ্যে অল্প পরিমাণে চর্বি থাকে এবং তাই এটি স্থূলতায় ভুগছেন এমন মানুষের জন্য এটি একটি আদর্শ এবং সুষম খাবার। মাছ এবং মাছের তেল এলডিএলের মাত্রা কমিয়ে দেয় এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করে।

এখন, নিয়মিত মাছ থাকার আশ্চর্যজনক অংশ হল এটি তাত্ক্ষণিক শক্তি বৃদ্ধিকারক হিসাবে কাজ করে কারণ এটি প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি এবং প্রোটিন সমৃদ্ধ। সালমন ক্লান্তির সাথে লড়াই করতে সহায়তা করে এবং আমাদের স্বাস্থ্যের উপর অনেক ইতিবাচক প্রভাব ফেলে।

বিষণ্নতা এবং অনিদ্রা কমায়
মাছের মাথা ও চোখ খাওয়ার উপকারিতা আমাদের মানসিক স্বাস্থ্যে অনেক। সামুদ্রিক খাবার আমাদের মেজাজ উন্নত করতে সাহায্য করে এবং আমাদের বিষণ্নতা এবং চাপ কমায়। কিছু গবেষণা এবং গবেষণার মতে এটি পাওয়া গেছে যে মাছের আইটেমগুলি ভাল এবং শান্তিপূর্ণ ঘুমের জন্য একটি দুর্দান্ত প্রতিকার হতে পারে।

মাছের উপকারিতা
Image by congerdesign from Pixabay

মাছ খাওয়ার অপকারিতা

মাছ খাওয়ার কিছু অসুবিধা আছে এবং এটি আমাদের শরীরে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। সুতরাং, প্রতিদিন খুব বেশি মাছ খাওয়ার আগে আপনাকে অবশ্যই প্রতিদিন মাছ খাওয়ার অসুবিধাগুলি স্বীকার করতে হবে।

পারদের উচ্চ পরিমাণ
অনেক মাছে উচ্চ মাত্রার পারদ থাকে যা আমাদের শরীরের জন্য বিপজ্জনক হতে পারে যদি আমরা প্রতিদিন আমাদের খাবারে প্রচুর মাছ খেতে থাকি। এটি ভ্রূণের স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশকে ধীরে ধীরে ক্ষতিগ্রস্ত বা প্রভাবিত করতে পারে।

কিছু মাছের কিছু দূষণ আমাদের শরীরের কাজ করার জন্য অস্বাস্থ্যকর হতে পারে এবং আমাদের প্রজনন ব্যবস্থাকে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, কিছু মাছের ফিললেট থাকার আগে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা গুরুত্বপূর্ণ।

ডায়রিয়া
খুব বেশি মাছের তেল গ্রহণ হজম ব্যবস্থাকে প্রভাবিত করতে পারে যার ফলে গুরুতর ডায়রিয়া হতে পারে। অতিরিক্ত ওমেগা-3 এবং অন্যান্য পরিপূরক মলত্যাগের সমস্যা, পেট ফাঁপা, বমি বমি ভাব এবং অস্বস্তি বৃদ্ধি করতে পারে।

এলার্জি
আমাদের মধ্যে অনেক লোকের অনেক মাছ এবং সামুদ্রিক খাবারের প্রতি মারাত্মক অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া রয়েছে। এলার্জি আমাদের শরীরে বিপজ্জনক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে। সুতরাং, সেই মাছ এবং মাছের আইটেমগুলি এড়িয়ে চলুন যার প্রতি আপনার অ্যালার্জি রয়েছে।

আবার, প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-3 বা ভিটামিন এ গ্রহণ আপনার শরীরের জন্য বিষাক্ত হতে পারে। সুতরাং, সঠিক পরিমাণে মাছ গ্রহণ করা ভাল যা আপনার শরীরের ক্ষতি করে না।

রক্তপাত
মাছের তেলের ভারী মাত্রার কারণে একজনের নাক দিয়ে রক্ত পড়ার প্রবণতা থাকতে পারে। উপরন্তু, এটি পেটে রক্তপাত হতে পারে এবং আলসার হতে পারে যদি কেউ মাছের তেল বেশি গ্রহণ করে।

সুতরাং, ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা বা গ্রহণ করা খুব গুরুত্বপূর্ণ

চিংড়ি মাছের উপকারিতা

চিংড়ি মাছের উপকারিতা
Image by Nicole Klesy from Pixabay

1. কম ক্যালোরি।

একটি মাঝারি চিংড়িতে কমপক্ষে 7 ক্যালরি থাকে। আমরা যদি তাদের এক ডজন খাই, তাহলে আমাদের 85 ক্যালোরি থাকবে। এদিকে, একটি বড় চিংড়িতে 18 ক্যালোরি থাকে। যদি আমরা এটি একটি বড় সংখ্যায় খাই, তবে এটি এখনও ক্যালোরি কম।

2. আমাদের ত্বক, চুল এবং নখের স্বাস্থ্য বজায় রাখা।

চিংড়িতে থাকা প্রোটিন আমাদের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে এবং চুল, ত্বক এবং নখের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। চিংড়ি খাওয়া প্রয়োজনের উপর ভিত্তি করে করা উচিত কারণ এটি খুব বেশি খাওয়া আমাদের শরীরের জন্য নেতিবাচক প্রভাব নিয়ে আসবে।

3. অ্যানিমিয়া প্রতিরোধ।

প্রমাণিত প্রমাণ সহ চিংড়ির স্বাস্থ্য উপকারিতা রক্তাল্পতা প্রতিরোধের জন্য। চিংড়িতে ভিটামিন বি 12 এর 21% ভিটামিন রয়েছে। লোহিত রক্তকণিকা উৎপাদনে এবং রক্তাল্পতা প্রতিরোধে এটিকে সহায়ক পুষ্টি বলা হয়।

4. শক্তি বৃদ্ধি।

নিয়মিত চিংড়ি খাওয়া শক্তি বা আমাদের দৈনন্দিন কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করবে কারণ চিংড়ি প্রচুর পরিমাণে আয়রন যা আমাদের শক্তি বৃদ্ধির জন্য বিখ্যাত।

5. চর্বি প্রক্রিয়াকরণ।

চিংড়িতে থাকা নিয়াসিন (ভিটামিন বি 3) আমাদের শরীরে চর্বি, কার্বোহাইড্রেট এবং প্রোটিন প্রক্রিয়া করতে পারে যাতে তারা শক্তিতে পরিণত হয়। নিয়াসিন ত্বক রক্ষক হিসেবেও কাজ করতে পারে কারণ এটি আমাদের ত্বককে সুস্থ রাখে এবং তাদের খসখসে ত্বক থেকে রক্ষা করে।

6. বিষণ্নতার ঝুঁকি হ্রাস করা।

অপরিহার্য ফ্যাট এসিড এবং ওমেগা  বিষণ্ণতার প্রতি শক্তিশালী সুরক্ষা দেয় এবং হারিয়ে যাওয়া মেজাজ ফিরিয়ে আনে।

7. হাইপোথাইরয়েডের ঝুঁকি হ্রাস করা।

চিংড়ি খাওয়া অতিরিক্ত তামা গ্রহণ করতে পারে। তামা খাওয়ার অভাব হাইপোথাইরয়েড হতে পারে।

8. অকাল বার্ধক্য প্রতিরোধ।

চিংড়িতে ক্যারোটিনয়েড থাকে যাকে অ্যাস্ট্যাক্সানথিন বলা হয়। এটি আমাদের ত্বককে সুস্থ রাখতে এবং অকাল বার্ধক্য রোধে উপকারী।

9. স্বাস্থ্যকর চর্বি গ্রহণ।

চিংড়িতে বিভিন্ন ধরণের স্বাস্থ্যকর চর্বি বা মনোঅনস্যাচুরেটেড ফ্যাট, বহু-অসম্পৃক্ত চর্বি, ওমেগা -3 এবং ওমেগা -6 থাকে।

10. প্রোস্টেট ক্যান্সার প্রতিরোধ।

আমাদের প্রতিদিন 48% সেলেনিয়াম খাওয়ার প্রয়োজন। সেলেনিয়ামের অভাব প্রোস্টেট ক্যান্সার সহ বিভিন্ন ধরণের ক্যান্সারের কারণ হতে পারে। ফুড রিসার্চ ইনস্টিটিউটের বেশ কয়েকজন গবেষক বলেছেন যে সালফোরাফেন এবং সেলেনিয়ামের মধ্যে সমন্বয় আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা 13 গুণ বৃদ্ধি করে।

11. প্রোটিন সমৃদ্ধ।

একটি চিংড়িতে 29 গ্রাম প্রোটিন থাকে। তাছাড়া এতে কার্বোহাইড্রেট কম থাকে।

12. হাড় মজবুত করা।

ক্যালসিয়াম এবং ফসফার দুটি পদার্থ যা একসঙ্গে কাজ করে শক্তিশালী হাড় এবং দাঁত গঠন করে। আমাদের পরামর্শ দেওয়া হয় চিংড়ি তাদের ত্বকের সাথে খাওয়ার জন্য কারণ এতে গ্লুকোজামিন থাকে যা আমাদের জয়েন্টগুলোতে কার্টিলেজ গঠনের জন্য উপকারী।

13. হরমোনের ভারসাম্য।

চিংড়ি খাওয়ার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হল আমাদের শরীরের হরমোনের ভারসাম্য রক্ষার কাজ। বিশেষ করে যদি আমরা খেলাধুলা করতে ভালোবাসি। চিংড়িতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে যা হরমোন উৎপাদন এবং আমাদের শরীরে হরমোনের সংখ্যার ভারসাম্য রক্ষায় উপকারী। তাছাড়া, চিংড়ি নিenসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ যদি আমরা আমাদের পেশীর ভর বাড়াতে চাই কারণ চিংড়িতে পুষ্টি থাকে যা ভর পেশী গঠনে সহায়ক।

14. ক্যান্সার প্রতিরোধ।

চিংড়ি খেলে ক্যান্সার প্রতিরোধ করা যায়। 56 মাইক্রোগ্রামে 4 আউন্স চিংড়িতে সেলেনিয়াম থাকে যা আমাদের শরীরে সেলেনিয়াম খনিজ গ্রহণ পূরণ করে। এই খনিজ সেলেনিয়াম হল অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি রোধ করে। বেশ কিছু প্রমাণিত গবেষণার ফলাফলে, চিংড়ির সেলেনিয়াম আমাদের শরীর দ্বারা ভালভাবে শোষিত হতে পারে।

চিংড়ি মাছের উপকারিতা
Image by vedat zorluer from Pixabay

15.এটি একটি প্রাকৃতিক মূত্রবর্ধক

প্রোটিনের ঘন উৎস হওয়ার পাশাপাশি পটাশিয়ামের উচ্চতা থাকার কারণে চিংড়ি শরীরে পানি ধরে রাখার এবং অতিরিক্ত তরল হওয়ার নিখুঁত সমাধান তৈরি করে। এটি আপনাকে হালকা, স্বাস্থ্যকর শরীর দিতে অতিরিক্ত টক্সিন এবং তরল নিসরণকে উদ্দীপিত করে।

16. এটি একটি সুষম রক্তের সুগার প্রচার করে

চিংড়িতে একেবারেই কার্বোহাইড্রেট নেই, যার মানে চিংড়ি খাওয়ার পর রক্তে শর্করার মাত্রা কখনো ওঠানামা করবে না। এটি ডায়াবেটিস প্রতিরোধ বা পরিচালনার পাশাপাশি স্থিতিশীল, দীর্ঘমেয়াদী শক্তি প্রদানের ক্ষেত্রে এটি একটি চমৎকার পছন্দ করে তোলে।

17. এটি আপনাকে আরো প্রাণবন্ততা দেয়

লোহা লোহিত কণিকার সংখ্যা বৃদ্ধি করে, যা আমাদের দেহে অক্সিজেন পরিবহনকারী। বেশি চিংড়ি খেয়ে আপনি আয়রন পাবেন, এবং বর্ধিত অক্সিজেন সরবরাহ কোষগুলিকে প্রাণবন্ত করতে, মস্তিষ্কের শক্তি বৃদ্ধিতে এবং আপনার পুরো শরীরকে একটি সুস্থতা দিতে প্রমাণিত হয়েছে।

18. ক্ষুধা বৃদ্ধি।

যদি আমরা আমাদের ক্ষুধা হারিয়ে ফেলি, আমাদের চিংড়ি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় কারণ এতে প্রচুর প্রোটিন থাকে। যদি আমরা প্রচুর পরিমাণে চিংড়ি খাই, তাহলে তারা পেপটিডা নামে একটি পদার্থ তৈরি করবে। আমাদের শরীরে পেপটিডা ক্ষুধা হরমোনের নিসরণ ঘটাতে পারে, যেমন কোলেসিস্টোকিনিন হরমোন। কোলেসিস্টোকিনিন হরমোন কারো ক্ষুধা নিবারণ করে। পেপটিডা দিয়ে, কোলেসিস্টোকিনিন হরমোন ব্যবস্থা করা যেতে পারে যাতে আমরা আমাদের ক্ষুধা ফিরে পেতে পারি।

19. রক্তাল্পতার ওষুধ।

চিংড়িতে বিভিন্ন ভিটামিন থাকে। ভিটামিন বি তার মধ্যে একটি। চিংড়িতে ভিটামিন বি কেবল এক ধরনের নয় কারণ অন্যান্য ধরণের ভিটামিন বি রয়েছে, উদাহরণস্বরূপ ভিটামিন বি 6, বি 12, কোলিন, নিয়াসিন এবং প্যান্টোটেনিস অ্যাসিড। এই ভিটামিন বি রক্তচাপ স্থিতিশীল এবং রক্তাল্পতা প্রতিরোধের জন্য অপরিহার্য। অ্যানিমিয়া রোগীরা তাদের ওষধের অংশ হিসাবে চিংড়িগুলি সামঞ্জস্যপূর্ণ চিংড়ি অংশের সাথে খেতে পারে।

20. ফসফরের উচ্চ সামগ্রী।

চিংড়ি আমাদের হাড় মজবুত করার জন্য শক্তিশালী। নিয়মিত চিংড়ি খাওয়া আমাদের হাড়ের ঘনত্ব বৃদ্ধি করবে যাতে তারা শক্তিশালী হয়। আমাদের হাড় গঠনের একটি উপাদান হল ফসফর। আমাদের হাড়ের পাশে, ফসফার আমাদের দাঁতকে শক্তিশালী করতে পারে। যদি আমাদের ভঙ্গুর হাড় থাকে, আমাদের স্বাস্থ্য একেবারে বিঘ্নিত হবে। বাতের সমস্যা থাকলে আমরা সাধারণত আমাদের জয়েন্টে ব্যথা অনুভব করব।

21. থাইরয়েড গ্রন্থির কার্যকলাপে সাহায্য করা।

চিংড়িতে উচ্চ এবং স্বাস্থ্যকর আয়োডিন আছে বলে বিশ্বাস করা হয়। থাইরয়েড গ্রন্থি সক্রিয় রাখার জন্য আমাদের এটি প্রয়োজন। এই গ্রন্থিগুলি আমাদের বিপাক ব্যবস্থাপনা এবং ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। গর্ভবতী মহিলাদের জন্য, আয়োডিন শিশুর মস্তিষ্কের কাজকে সমর্থন করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

22. আমাদের চোখকে সুস্থ রাখা।

চিংড়ি খাওয়ার অভ্যাস আমাদের চোখ সুস্থ রাখার জন্য ভালো। চিংড়িতে রয়েছে অ্যাস্টাক্সানথিন যা আমাদের চোখ বা চোখের বিকিরণের জন্য সূর্যের রশ্মির খারাপ প্রভাব কমাতে উপকারী।

23. ওজন কমানো।

চিংড়ি আমাদের ওজন কমাতে ভালো কারণ এতে কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন এবং চর্বি, জিঙ্ক এবং ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে। এই পদার্থগুলি স্বাস্থ্যকর। জিঙ্ক এবং ম্যাগনেসিয়াম আমাদের শরীরে লেপটিন হরমোনের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে। এটি একটি হরমোন যা আমাদের শরীরকে ক্ষুধা সামঞ্জস্য করতে এবং আমাদের শরীরের শক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

24.আমাদের মস্তিষ্ক সুস্থ রাখা।

চিংড়িতে আয়রন থাকে যা আমাদের মস্তিষ্কের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। যখন আমাদের রক্ত ভালভাবে প্রবাহিত হয়, এটি আমাদের মস্তিষ্কে পর্যাপ্ত অক্সিজেন সাপোর্ট করে যাতে এটিও ভালভাবে কাজ করতে পারে। মস্তিষ্ক গ্রহন করা প্রায়ই আমাদের বুদ্ধিমত্তা এবং স্মৃতি রাখার ক্ষমতার সাথে সম্পর্কিত।

চিংড়ির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
চিংড়ির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
Image by sintec from Pixabay

1. চিংড়ির অত্যধিক ব্যবহার পারদ বিষক্রিয়ার ঝুঁকি নিয়ে আসে কারণ চিংড়িতে বিভিন্ন স্তরের পারদ থাকে।


2. যেহেতু চিংড়িতে উচ্চ মাত্রার পিউরিন থাকে, সেগুলি ইউরিক অ্যাসিড এবং কিডনি বিকল হওয়ার কারণ হতে পারে।


3. চিংড়ি এলার্জি সৃষ্টির সম্ভাবনা। চিংড়ির অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া হল ফুসকুড়ি-চুলকানি, বমি বমি ভাব, বমি এবং ভয়ঙ্কর মাথাব্যথা।


4. অত্যধিক পরিমাণে চিংড়ি কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে যাতে তারা উচ্চ রক্তচাপ, স্ট্রোক এবং হৃদরোগের রোগীদের জন্য বিপজ্জনক।

Leave a Reply